২০২১ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ৮০ দিনের সিলেবাস থেকেই বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার সিলেবাস নির্ধারণ করা হবে বলে জানিয়েছেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন। আপাতত শিক্ষার্থীদের এ বিষয়টি নিয়ে কোন ধরনের দুঃশ্চিনা না করার পরাশর্শ দিয়েছেন তিনি।
আজ রবিবার (১৮ এপ্রিল) ‘করোনাকালীন শিক্ষা’ নিয়ে আয়োজিত দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসের ফেসবুক ও ইউটিউব লাইভ অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে তিনি এ কথা জানান।
মো. মাহবুব হোসেন বলেন, এ বিষয়টি নিয়ে আমরা এখনো পরিষ্কার সিদ্ধান্ত নেইনি। তবে এটা অন্তত পরিষ্কার শিক্ষার্থীদের যতটুকু পড়ানো হবে তার মধ্য থেকেই সব ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন করা হবে।
যেটা শিক্ষার্থীদের পড়ানো হয়নি সেখান থেকে কোশ্চেন করার এখতিয়ার আমাদের নেই। শিক্ষার্থীদের পড়ানো হয়নি- এমন সিলেবাস থেকে কাউকে কোশ্চেন করার সুযোগ দেয়া হবে না বলেও জানান তিনি।
তিনি বলেন, না পড়িয়ে একটা সিলেবাস থেকে শিক্ষার্থীদের জন্য কোশ্চেন করা হবে এটা হতে পারে না। যে সিলেবাস তাদের পড়ানো হবে সেটা থেকেই কোশ্চেন করা হবে। এখন শিক্ষার্থীদের যে সিলেবাস পড়ানো হবে তারা ভর্তি পরীক্ষার জন্য সে সিলেবাসটাই অনুসরণ করবে। সিলেবাসের বাইরে কোন প্রশ্ন হবে না। তবে আমরা আগে আমাদের ৮০ দিনের কর্মপরিকল্পনাটা শেষ করে পরবর্তী চিন্তা করতে চাই।
শিক্ষার্থীদের আশ্বস্ত করে তিনি বলেন, এটা নিয়ে এখন শিক্ষার্থীদের দুঃশ্চিন্তা করার কোন কারণ নেই। তাদেরকে যেটুকু পড়ানো হবে; যা সিলেবাসে থাকবে এখন থেকেই সেখানে তারা মনোযোগ দিলে ভর্তি পরীক্ষায় ভালো করবে। আমাদের নির্দিষ্ট সিলেবাসটা তারা কম্প্লিট করতে পারলেই আমরা তাদের থেকে প্রত্যাশিত ফলাফলটা পাবো। মূলত এটার ভিত্তিতেই একজন শিক্ষার্থী তার পরবর্তী পড়াশোনা এগিয়ে নেবে।
এর আগে এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে এসএসসি ও সমমান এবং এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা নেয়ার লক্ষ্যে নতুন করে সিলেবাস তৈরি করেছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্য পুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)।
এনসিটিবির চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ন চন্দ্র সাহা জানিয়েছেন, আমরা এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার্থীদের জন্য ৬০ কর্ম দিবসে শেষ করা যাবে এমন সিলেবাস তৈরি করেছি। আর এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার্থীদের জন্য ৮০-৮৪ দিনে শেষ করার মতো সিলেবাস তৈরি করা হয়েছে। সিলেবাস আগের চেয়ে অনেক সংক্ষিপ্ত করা হয়েছে। এটি খুব সহজেই নির্ধারিত সময়ে শেষ করা যাবে।